কুলশিত প্রম

আহসান হাবীব উৎস :

খ্রিস্টান মিশনারির অপজিটে একটা দোতলা বাসার সামনে নাম না জানা একটা বিশাল পুষ্পবৃক্ষ আছে, সেখানে রোজ রাতে ঘ্রাণবৃষ্টি হয়৷ আমি ঠায় দাঁড়িয়ে থাকি, উপরতলার বেলকনিতে দাঁড়িয়ে একটা মেয়ে খুটখুট করে হাসে আর অল্প আওয়াজে কথা বলে৷ মাঝেমাঝে কিছু অশ্লীল বাক্যলাপও করে, গাছের পত্রতলে বসে আমার কানে সে বাক্য বিষমাখা তীরের মত লাগে৷

প্রেম মানুষকে অশ্লীল করে নাকি মানুষ প্রেমকে অশ্লীল করে আমি সে প্রশ্নের উত্তর এখনও খুঁজে পায়নি৷ এতো নরম সুবাসের হাওয়া গায়ে লাগিয়ে মানুষ কিভাবে নোংরা আলাপ করে আমার জানা নেই৷ আমার মনে শুধু তিনটি চরণ আসে—

‘অগ্নিরথ আমাকে কোলে তুলে নিও সবশেষে,
ইচ্ছা হলে ছুড়ে ফেলে যেও,
যেও হাওয়ায় ভেসে। ’

এই শহুরে প্রেমগুলো কেমন জানি অদ্ভুত৷ কেমন জানি খাই খাই, শুকি-শুকি ভাব৷ আমার গ্রাম্য বংশীবাদক রাখাল প্রেমিক হতে ইচ্ছা করে, যার বংশীর সুর হবে একজন সোনার কণ্যার জন্য অথচ সেই সুরে মাতাল হবে হাজারো কণ্যা আর যার জন্য সুর তোলা সে তখন বেঘোর ঘুমে ব্যস্ত৷

আমরা সাহিত্য চর্চাও করবো না, লেখকও তৈরি করবো না, সম্পাদনাও করবো না, কেবল প্রকাশ করবো স্বপ্ন আর সৌহার্দ্য।

আপনার লেখা আজেই পাঠিয়ে দিন শুভ্র কাগজে। এই কাগজ প্রকাশ করবে আপনার প্রীতি।