বিমূর্ত বিভ্রম

~ নুসরাত জুবেরী

কুয়াশার জড়তা ভেদ করিয়াও যেন তোমার শরীরের ছায়া
ধরা দেয় আমার চোখে।
আমি আগাইয়া যাই, অথচ তুমি পিছাইয়া যাও
আমি পিছাইয়া যাই তবুও তুমি রইয়া যাও পাছে।
তুমি যেন হারাইয়া যাও
বন্দি হও অনন্ত দীর্ঘ কুয়াশার জালে
তোমারে ছুঁই না আমি
আমারে যেন টানে কিছু শিকলের বেশে।

স্বপ্নে তোমারে পাই আমি-
ঘুম ঘুম আবেশে তলাইয়া যাওয়া চোখের পাতায়
তুমি আইকা দাও তোমার নিঃশ্বাস
তোমার নিঃশ্বাসে ভড়াইয়া আমার বুক;
সমুদ্রের জোয়ারে নিস্তব্দ আবেগ ভাসাই আমি
ফিনকি দিয়া উঠে সমুদ্র জলে আমার যত সুখ।

অন্ধকারের চাদরে তুমি মুড়াইয়া নাও আমায়,
অগণিত লালসা জাগে মন আত্নার খেয়ালে,
বুকের ভেতরে ভাসতে থাকা আবেগে মাছেরা কাটা দিয়া যায়।
ঘুম ঘুম চোখে আমি আবার আগাইয়া যাই তোমারে
ছুঁইতে, কিন্তু
আমার এইপাশে আর;
তোমার ওইপাশে- আমাদের মাঝখানে;
একটা আকাশছোঁয়া স্বচ্ছ কাচের দেয়াল।
কাচের দেয়ালে বাতাসে ধাক্কা খাইয়া প্রাচীন নিওলিথির
সুরে ভাইসা আসে;
আমাদের কুয়াশায় জড়ানো প্রেম।

আর দেয়ালের ওপাশে তোমার চোখ বাইয়া ঝরে কিছু
বিষাদগ্রস্ত দিন; কিছু
ফেলে আসা দিন; কিছু
বন্দি হওয়া দিন।

আমরা সাহিত্য চর্চাও করবো না, লেখকও তৈরি করবো না, সম্পাদনাও করবো না, কেবল প্রকাশ করবো স্বপ্ন আর সৌহার্দ্য।

আপনার লেখা আজেই পাঠিয়ে দিন শুভ্র কাগজে। এই কাগজ প্রকাশ করবে আপনার প্রীতি।